নির্মাণ শ্রমিক নিয়োগের সময় কোন বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখবেন

বাড়ি নির্মাণ ভাল হবে, না খারাপ হবে তা নির্ভর করে ভালো কারিগর বা মিস্ত্রী নিয়োগের উপর। আপনি যদি সামান্য টাকা বাঁচানোর জন্য নিম্নমানের লোক নিয়োগ করেন, তবে আপনার নির্মাণ কাজ খারাপ হবে। অতএব , সঠিক মূল্যে ভালো মিস্ত্রী নিয়োগ করতে হবে। অনেকে কাজগুলো আইটেম অনুযায়ী কন্ট্রাক্ট দিয়ে দেন, এতে কাজের গুণগত মান ঠিক থাকে না। কারণ, সেক্ষেত্রে যিনি কাজটা নিয়েছেন তিনি চান কোনমতে কাজ শেষ করে দিতে। আবার দৈনিক ভিত্তিতে মিস্ত্রী নিয়োগ করলে কাজের গুণগত মান ভালো হলেও খরচ পড়ে যায় বেশি। এজন্য বিভিন্ন কাজের জন্য যদি আলাদা আলাদা রেট ঠিক করে সঠিক ভাবে কাজ বুঝে নেওয়া যায়, তাহলেই সবচেয়ে ভালো হয়। এ ব্যাপারে প্রকৌশলীর সহযোগিতা নেওয়া হলে আরো ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।

মিস্ত্রি নিয়োগের ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত বিষয়সমূহ খেয়াল রাখতে হবেঃ

  • কাজের পূর্ব অভিজ্ঞতা
  • আর্থিক স্বচ্ছলতা
  • অদক্ষ শ্রমিক দিয়ে কাজ করিয়ে নেওয়ার যোগ্যতা
  • ড্রয়িং দেখে কাজ করার দক্ষতা
  • Group এর সাথে সংযুক্ত অন্যান্য দক্ষ লোকের কাজের গুণগতমান

নির্মাণ কাজের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত রাজমিস্ত্রির ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। তাই রাজমিস্ত্রী নিয়োগ দিয়ে তাকেই অন্যান্য মিস্ত্রী দিতে বলা হলে কাজের মধ্যে সমন্বয় সাধন সহজ হয়। তা না হলে রাজমিস্ত্রি দোষারোপ করবে রডমিস্ত্রীকে যা কাজের ক্ষতি করবে।

রাজমিস্ত্রী নিয়োগের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবেঃ

  • তার কোন প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ আছে কিনা
  • বড় কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে কিনা
  • সাধারণ সমস্যাসমূহ সমাধানে সক্ষম কিনা।

রডমিস্ত্রী নিয়োগের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবেঃ

  • নকশা অনুযায়ী রড কাটতে পারে কিনা
  • কাজের পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে কিনা
  • নকশা অনুযায়ী রড বাঁধতে পারে কিনা।

সকল ধরণের মিস্ত্রিদের জন্য প্রযোজ্য শর্তাবলীঃ

  • প্রধান মিস্ত্রীকে অবশ্যই ভাষা লিখতে ও পড়তে জানতে হবে। নকশা পড়তে ও বুঝতে হবে, ইঞ্চি, ফিট, মিটার ও সেন্টিমিটার সম্পর্কে জানা থাকতে হবে।
  • নির্মাণ সামগ্রীর ভালমন্দ গুণাগুণ সম্বন্ধে জানা থাকতে হবে।
  • নির্মাণ সামগ্রীর অপচয় রোধ করতে হবে।
  • প্রতিটি নির্মাণ উপকরণ যথাযথ প্রযুক্তির মাধ্যমে ব্যবহার করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.